Tuesday, December 29, 2015

Valobasa Rupantorjoggo- ভালবাসা রূপান্তরযোগ্য


আমি যাকে ভালবাসি সে বাসে অন্যকে,
আবার সে যাকে ভালবাসে সে অন্য কাউকে
হতে পারে, তাই ভালবাসা রূপান্তরযোগ্য

একদিন আমি পিতা-মাতা-কে ভালবাসতাম
তারা আমাকে ভালবাসত, আদর করত-
আমি তাদেরকে বুকে জড়াতাম-
ভাই-বোন তাদেরকেও ভালবাসতাম
নিজের জীবনসম
আমি আজ ভালবাসি অন্য কাউকে,
তাই ভালবাসা রূপান্তরযোগ্য

আমি আজ অন্যের জন্য জীবন দিতে প্রস্তুত,
পিতা-মাতা, ভাই-বোন এখন তুচ্ছ
ভাবতে অবাক লাগে-
এটাই সত্য
তাই ভালবাসা রূপান্তরযোগ্য

এভাবে ভালবাসার রূপান্তর ঘটে
পিতা থেকে তাঁর স্ত্রী (মাতা), পিতা থেকে সন্তান,
সন্তান থেকে নাতি-পুতি- আর-
ব্যক্তি (নিজ) থেকে পিতা-মাতা, ভাই-বোন, তারপর-
তারপর অন্য কেউ
তাই ভালবাসা রূপান্তরযোগ্য

তুমি আজ যাকে ভালবাসছো কাল তাকে নাও বাসতে পারো
কি চাই আমি?
ভক্তি বা এবাদত- যার রূপান্তর নেই
ব্যক্তি থেকে ব্যক্তি, জাতি থেকে জাতি
সর্বপরি একমাত্র স্রষ্টা, তার প্রতি
মৃৃত্যু-সম্মুখেও ভক্তি-এবাদত অটুট থাকে
আমি ভুলে গেছি, কি যেন বলছিলাম-

ও হ্যাঁ! ভালবাসা রূপান্তরযোগ্য




Thursday, December 17, 2015

Jibon Cholar Pothe - জীবনে চলার পথে





জীবনে চলার পথে কেউ কেউ ফাঁকি দিয়ে যায়
হয়তোবা কেউ কেউ বুকে রয়ে যায়
সিঁড়ি বেয়ে উঠতে যেমন লাগে-গো কঠিন
কাছ থেকে চেয়ে দেখ, জীবনও মলিন-
কুয়াশার চাদরে, নিষ্ঠুর আদরে আড়ষ্ট যে মরণ

হাতের সময় আজ ধুলাতে লুটায়
বন্ধু তো সেই হয়- বিপদে যে অসহায়
হাত বাড়ায় সে অকারণ, তাকে আমি করিনি আলিঙ্গন
যে কপালে সুখ তার উল্টোপিঠে দুখ্
পারেনা মুছতে ব্যথা, সদা ভেঙে যায় বুক
আলোতে আধার কাটে, স্নেহহীন আত্মা জাগে
মমতার বাঁধনে জড়ানো তবু কেন যে অসুখ

ভুল শূধু ভুল এই ভাবনার মাঝারে
কখন যে হয়ে গেল বুঝিনি গোপনে
কেন আমি নিষ্ঠুর তব অন্তরে?





 











Saturday, September 19, 2015

শরতের আকাশ- Soroter Akas

সাদা কাঁশ নীল আকাশ
দুঃখের মাঝে অবকাশ,
এই বাংলা, সাবাশ সাবাশ
মনের মাঝে ছোট্ট আশ
দিন গেলে ফুরায় আকাশ
কলিজা ভাঙে চটাশ চটাশ

 গাছের ডালে চড়ই বাসা
আবুল মিয়ার পেয়ারা ডাঁশা
কইলে পরে হবে গোসা
হাতের কাছে নেইতো মশা
দিল বলে কলার খোসা আর
খেঁটে মরে কলির চাষা 

শক্ত চালির উপরে তালি
পোক্ত আখের গোড়ায় ফালি
চোরকা ব্যাটা মুন্ডয় কালি
 নদীর পাড়ে কাঁদা তুলি
পাড়া-গাঁয়ের ম্যাডাম ফুলি
 চুল-চুলানি, কোলাকুলি

 কি বলি, হচ্ছে যা তা
খেটে মরে বোকার মাথা-
 বেসুরা এই মদনা ব্যাটা







Sunday, August 2, 2015

Prem- (প্রেম)



আমি তোমাকে চাই, তুমি আমাকে চাও তাই
যখন দূরে চলে যাই তোমাকে বেদনার চাদরে জড়াই
এমনই প্রেম চলেছে ধরায়-
হায়! সমাজ, তুমি কর কি কাজ?
তারা-তো আছে কষ্ট বেদনায়

সরলতার চোখে জড়তাহীন বুকে
ঠাঁই দাও ঠাঁই দাও হাসির রেখা এঁকে,
নব জীবন আনন্দে উদ্যাল হতে চায় সুখে-
দিয়োনা দুঃখ সহসায়

জানি মানবে না তুমি নতুনের আহ্বান
তাতে হয় যে তোমার অপমান!
তবুও ভাবোনা, কেন কষ্টে থাকে দুটি হৃদয়

যে প্রেম পবিত্র রেখেছে ধরীত্র
তাকে স্বীকার কর, তুমি নীরবে থেকো না মিত্র
এখানে আমার জীবন তার সাথে বাঁধা আছে
তাই দুজনই শ্বাস লই, পবিত্র প্রেমের সূত্র






Friday, May 1, 2015

Amar Anek Rin - আমার অনেক ঋণ


একটু সত্য আর একটু মিথ্যা
সবই মিলে অযথা সেই সব কথা
যার অর্থ নিরার্থ হয়ে যায় কালবেলায়
সেই অসীমে মিলেছে দুটি পাখি
জানো কি কোন ভরসায়?

সূর্য অনল দীনহিনের প্রতি
আর্তি তাহার প্রতি যিনি দেখেনাই
শক্তি, এই নিরীহরে করেছে ক্ষতি,
আমি ভিক্ষার দুয়ারে উদ্বাহু নই
যাহা আচলে লয়ে আসবে
তাহার নিতান্তই অংশিদার মাত্র
অনাহারে দিনাতিপাত এ-তো সময়ের সুত্রপাত
মম অন্তরের বাগিচায় হবে নিশ্চয়

একটু সত্যের আড়ালে কতইনা মিথ্যা চলে
বিভিষীকার মত,- আমি নির্বাক, হতবাক
তোমারই কথা কয়ে শিমুল পলাশ বনে
অল্প পত্রে ছিন্ন শাখায় যেই স্বপ্ন নিমিষে ঝরে
সেই টুনির খড়কুটায় নিঃশব্দে কেউ হানা দেয়
সত্য হারায় অতলে অথবা নির্জনে

আরো মিথ্য বাসা বাধে স্তরে স্তরে
কোন এক সসীম চাওয়ার মৌ-বনে
অলখে বিনিদ্র রজনীকোলে শুকনো আদরে
চলমান পত্রের শুষ্ক রুক্ষতা-
ভীরুতার কৌটায় ভরে তীক্ষ সত্যতা
নিরুদ্দেশ হয়েছে একদিন
খুঁজে পাইনি, তাই তো আমার অনেক ঋণ









Sunday, April 19, 2015

Tomari Hota Alam- তোমারই হতে এলাম



অনেক দিন পর, তোমারই হতে এলাম
বলো, হবে কি না!
কেন এতো অভিমান ছিল আমার প্রতি?
আমিতো দোষ করিনি,
বলো, করেছি কি না!

হ্যাঁ, তোমার হতে এসেছি,
শুধু তোমারই
ওই নীলাকাশ, ওই সবুজ বনানী
সবই তোমায় দিতে এসেছি
বলো, নেবে কি না!
আমি স্বপ্নের মতো এঁকেছি রং-তুলিতে
তোমার অপূর্ব মূর্তি,
যাতে কোন খাত নেই
আমি সীমার উপর অসীমের আলোতে
তোমার প্রতি করেছি আর্তি
তাতেও কোন ভুল নেই

আমি ফিরে যেতে আসিনি অদূর থেকে
তোমার দুয়ারে-
অচেনা হতে আসিনি অপরিচিত পথিকের বেশে-
আমি এসেছি তোমার অন্তরে ঠাঁই পেতে
আর উষ্ণ পরশে রাখতে বুকে
বলো, থাকবে কি না!

আরো, না বলা কথা,
অনেক দিনের স্মৃতি
আন্দোলিত হৃদয়ে ছুটে এসেছে এই হৃদয়
তুমি দেবে কি ব্যথা?
দিলেও সয়ে নেব বিরাগ হবনা তোমার প্রতি-
আমিতো অনুরাগের ডালিতে তোমাকে চেয়েছি সদয়
আর আড়ালে থেকো না
আচলের নিচে হতে অশ্রু লুকিয়ে ফেলনা,
এইতো আমি এসেছি
বলো, এসেছি না?





Tuesday, April 14, 2015

O He Niranjon! - ওহে নিরানজন (Pohela Boishak-পহেলা বৈশাখ)

বক্ষ অতলে নিভৃতে কি বলে! শুধাইনি মম অন্তরাত্মাজন-
-হৃদয় সপেছি তব প্রনয়ে ওহে নিরানজন

আসিবে ফিরে ভঙ্গুর তনয়ে নীলাম্বরী
নব অন্তরাত্মা জড়ায়ে বিলাপকারী
সুপ্ত হিয়া, অতৃপ্ত বাসনায় করিছে সমার্পন
যিনি সৃষ্টির সমীপে করিছে ধরাকে আলিঙ্গন

অচেনারে চিনি নাই ডাকিনাই নিরজনে
জ্ঞান-বুদ্ধি বিলোপ-কায়ে শক্তিহীন হইল -সাধনে
ওহে দিবাকর -কি তব তিরস্কার?
কণ্ঠ শুকাইছে ধীর-মস্তিষ্ক
দেখিনু জনম জনম ভর

আমি অস্থির চিত্তে মুদিত নয়নে
ভিক্ষা মাঙ্গি নব ঊষার প্রভাতে,
দীনজন- আধার করিও না-
নব প্রদীপ জ্বালায়ে, ছিনু অপেক্ষায়
তব বন্দন-সঙ্গিতে

পুষ্প কাননে নৃত্য আগামী করিবে কাল
সংশয়ে নিজ মতি, অকালে অখ্যাতি
চাহেনি চার-অঙ্গুলি ভাল

-কালে দেহ মোরে খ্যাতির স্বর্ণ মুকুট
যেন অসাধু বুঝিতে না পারে
নিঠুর বৈভবে ঠাঁই দিও মহাজন,
ছিন্ন পত্রে লিখিনু এই চিরকুট

আলোর বেদিতে সোনায় খোদিত নাম
ওহে নিখিল স্বরূপ তব
সর্বত্র বিরাজমান
নির্ভুলে যেন করিতে পারি সম্মান;
আর ভাঙিয়া দাও যতটুকু কুড়ায়েছি বদনাম

আমি আলোর পুজারী জ্ঞানের আহারি
অতি ক্ষুদ্র-সুক্ষè তব প্রনয় ভিক্ষারি,
চাহে ভিক্ষা করুনাভরে
-নিলাজ অহংকারী-
আমি অদ্ভুত কিম্ভুতে অবিশ্বাসী,
তব প্রনয় শিকারী






Last 7 Days!

App